বুধবার , ডিসেম্বর ১৯ ২০১৮

পাইলটের অনুরোধ রাখেনি কন্ট্রোল রুম (পাইলটের শেষ অডিও রেকর্ড)

বাংলার আলো ডেস্কঃ ঢাকা থেকে নেপালের কাঠমান্ডুর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া বাংলাদেশের বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস বাংলার একটি উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে অর্ধশতাধিক আরোহী নিহত হয়েছেন।

বিমানবন্দরের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম থেকে পাইলটকে অবতরণের ভুল নির্দেশনা দেয়া হয়। বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার আগ মুহূর্তে বিমানের পাইলটের সঙ্গে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের সর্বশেষ কথোপকথনে এমনই আভাস পাওয়া গেছে। বিমানটি কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে পাইলটের সর্বশেষ কথোপকথনের একটি অডিও রেকর্ড হাতে পেয়েছে নেপালের ইংরেজি দৈনিক নেপালি টাইমস। নেপালি এ দৈনিক বলছে, কন্ট্রোল রুম থেকে ভুল বার্তা দেয়ার কারণেই ককপিটে দ্বিধায় পড়েন পাইলট।

অডিও রেকর্ডের শুরুতে শোনা যায়, এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল থেকে সিগন্যাল না পাওয়ায় প্রায় আধঘণ্টা আকাশেই ঘুরছিল ইউএস বাংলা বিএস২১১ বিমানটি। রানওয়ে ০২-এ অবতরণের চেষ্টা করছিলেন বিমানের ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান। তবে বারবারই কন্ট্রোল রুম থেকে বিমানটিকে অবতরণের জন্য নিষেধ করা হচ্ছিল। বারবার বলা হচ্ছিল, ‘হোল্ড।’

পাইলট আবিদ সুলতান বলছিলেন, ‘আমি ডান দিকে যাচ্ছি।’ ঘুরতে থাকা সময়ের ২৫ মিনিটের শেষ দিকে এটিসি থেকে বলা হচ্ছিল, ‘রানওয়ে ক্লোজড।’ একপর্যায়ে কোনো উপায় না পেয়েই বিমানটি অবতরণ করাতে বাধ্য হন পাইলট।

এদিকে, বিধ্বস্ত বিমানটির নেপালি এক যাত্রী বলেছেন, ঢাকা থেকে স্বাভাবিকভাবেই বিমানটি উড্ডয়ন করে। কিন্তু কাঠমান্ডুতে অবতরণের সময় এটি অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করে।

সিভিল এভিয়েশনের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, নেপালের এটিসি সিস্টেম পৃথিবীর সবেচেয়ে দুর্বল। কেবল এ কারণে গত সাত বছরে ১৫টি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

 

এখানে অডিও আছে

Check Also

মুম্বাইয়ে হাসপাতালে আগুন, শিশুসহ নিহত ৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে শিশুসহ আটজন নিহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা আরও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *